স্মৃতিতে অম্লান

স্মৃতিতে আসাদ ভাই

রাশেদ নিজামী

স্মৃতিতে আসাদ ভাই

রাশেদ নিজামী

২০০৮ সালের মার্চ মাস। ক্যাম্পাসে নতুন আমরা। ক্লাস শুরু হয়েছে ২৬ জানুয়ারী। ক্লাস নোটের প্রতি চাহিদার জায়গা থেকে প্রথম কোন নোট ফটোকপি করলাম। নোটে নাম সহ মোবাইল নম্বর দেওয়া। ফোন করে জানতে পারলাম ভাই থার্ড ইয়ারে পড়ে। বললাম ভাই আপনার সাথে দেখা করতে চাই। ভাই বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজলা গেট এর বিপরীতে একটি দোকানের নাম বলে সেখানে আসতে বললেন। গিয়ে তো আমি অবাক – সেটা ভাই এরই দোকান। ভার্সিটিতে পড়া অবস্থায় এমন দোকান করা আমার চিন্তার বাইরে ছিল।

হ্যাঁ আমি আমাদের আসাদ ভাইয়ের কথা বলছি। সেই থেকে আসাদ ভাইয়ের সাথে মোটামুটি ভালো সম্পর্ক ছিল আর মাঝে মাঝেই দেখা হতো কারন আমিও তখন কাজলায় থাকতাম। ডিপার্টমেন্টের বিভিন্ন প্রোগ্রামে তথা ক্যাম্পাসে ভাইকে খুব একটা দেখতাম না। একদিন জিজ্ঞেস করলাম ভাই ক্যাম্পাসে বা ডিপার্টমেন্ট এ সময় দেন না কেন? তার সোজা সাপ্টা উত্তর- সব কিছু নিয়ে এত ব্যাস্ত যে ক্লাস করারই ঠিক মত টাইম পাই না!

ক্যাম্পাস লাইফ শেষ করে সেই আসাদ ভাই কয়েকটা চাকরি পরিবর্তন করে করে থিতু হয়েছিলেন সুপ্রিম কোর্ট বার এর লাইব্রেরিতে। ভাই এর ঐ অফিসেই তার সাথে আমার শেষ বারের মত দেখা হয়েছিল তাও প্রায় বছর খানেক আগে। পুরাতন অনেক স্মৃতিচারণ করেছিলাম সেদিন।

কি আশ্চার্যজনক ব্যাপার! সেদিন যে দুইজন এ্যাডভোকেট বন্ধুর সাথে আসাদ ভাই এর অফিসে গিয়েছিলাম আজ সকালে তারা দুই জন প্রায় একই সময়ে আমাকে আসাদ ভাইয়ের মৃত্যু সংবাদ দিল। এ মৃত্যু মেনে নেয়ার মত নয়। কিন্তু তারপরও মানুষ চলে যায় এটাই চরম সত্য।

মরহুম আসাদ ভাই এর জন্য দোয়া করি, আল্লাহ আমাদের আসাদ ভাইকে দুনিয়ার সমস্ত গুনাহ মাফ করে দিয়ে জান্নাতুল ফেরদৌস নসীব করুন। আমীন।

লেখক:                                                                  

এসিস্ট্যান্ট লাইব্রেরিয়ান,                                      

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, ঢাকা।

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close