স্মৃতিতে অম্লান

স্মরণে ড. নাজিম : মিথ নয় সত্যি…

প্রফেসর ড. মো. নাসির উদ্দীন মিতুল

(ছবির সাথে কাহিনীটা মিলিয়ে নিন)

কনফারেন্স চলছে। শিরোনামঃ ওপেন এ্যাকসেস। তারিখঃ ৬-৭ মার্চ ২০১৯। স্থানঃ বিএআরসি, ফার্মগেট, ঢাকা।

নাজিম ভাইয়ের ফোন বেজেই চলছে…ক্রিং… ক্রিং……। নিজস্ব ঢঙে নিচু গলায় ফোন ধরলেন তিনি। কেমন যেন অস্থির মনে হচ্ছিল তাকে। আমি টের পাই। কারণ তার বাম পাশে আমি আর ডান পাশে রেজা ভাই বসা। ফোন ছাড়তেই তাকে রেজা ভাইয়ের প্রশ্ন- কার ফোন পেলেন নাজিম ভাই?

ড. নাজিমঃ ‘রেজা, আপনাকে এক্ষুনি যেতে হবে। কে ফোন করেছে, সেটা ইম্পরট্যান্ট না। তবে আপনাকে এক্ষুনি যেতে বললো। আপনি যাবার একটু পরেই আমি আসছি। প্লিজ উঠুন। যান দ্রুত’।

‘না, নাজিম ভাই, একটু থাকি, আমার সেশনতো শেষ হলো মাত্র। আপনারটা দেখবো না? সেটা কি করে হয়? তাছাড়া ড. মিতুলের সেশন-ও মিস হবে’। রেজা ভাইয়ের পাল্টা প্রশ্ন। ফিস ফিসিয়ে আমি জানতে চাইলাম, ‘নাজিম ভাই, কি হয়েছে? কেন আপনাকে ফ্যাকাশে লাগছে? রেজা ভাইকে কে যেতে বলেছে? কি সমস্যা?’

নাজিম ভাই চুপিসারে বললেন, ‘ড. রেজার সেশন ওভার। তাই তাঁর আর থাকার দরকার নেই। সে যাক। আমারটা কিছুক্ষনের মধ্যেই হয়ে গেলে আমিও আসছি’। কানের কাছে গিয়ে বললাম, ‘আমি? আমার ব্যাপারে কিছু বলেনি’? নাজিম ভাই চুপ করে থাকেন। কিছুক্ষণ ভেবে বললেন, ‘আপনার সেশনতো অনেক পরে। ঠাট্টা করে আরো বললেন, সেশন শেষ করে আবার ফটোসেশনসহ আরো কত কিছু আপনি করবেন। আপনার অনেক দেরী হবে। ততক্ষণ আমার আর ড. রেজার অপেক্ষায় থাকা কিছুতেই চলবে না। বুঝলেন ড. নাসির, এটা হচ্ছে বসের স্ট্যান্ডিং অর্ডার’!

আমি আর কথা বাড়াইনি। চুপ করে থাকি। ভাবি। কে সেই বস? কি এমন অর্ডার করলো যে দু’জনই গোপন করলো? …………এতদিনের সেই জিজ্ঞাসার উত্তর যেনো আজ স্বয়ংক্রিয়ভাবে মিলে গেলো।

আমি কিন্তু মিলিয়ে ফেলেছি। আপনি মিলাতে পেরেছেন কি? চেষ্টা করুন। একটু ভাবুন উপরের সিকোয়েন্সটা। সব মিলে যাবে। রেজা ভাই ১৫ই মার্চ ২০১৯ আর নাজিম ভাই ২২শে ডিসেম্বর ২০২০। মাত্র ২১ মাসের ব্যবধানে দু’টি নক্ষত্রের খসে পড়ার মধ্যেই যে অংকটা মিলে গেলো। আরো মিলে গেলো শেষ দেখার দিনে সেই কনফারেন্সের শিরোনামের সাথে। ওপেন এ্যাকসেস! যেখানে প্রবেশ কোনো আইডি পাসওয়ার্ড দিয়ে ঠেকিয়ে রাখা যায় না। সকলের জন্য এটি বাধ্যতামূলকভাবে উন্মুক্ত। হায়রে জীবন! এত নির্মম সত্য কেনো তুই? কেনো মিথ হয়ে এসে সত্য হয়ে ধরা দিলি?


প্রফেসর ড. মো. নাসির উদ্দীন মিতুল

  • হেড অব দ্য ডিপার্টমেন্ট, লাইব্রেরি এন্ড ইনফরমেশন সায়েন্স
  • ডিন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়।
Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close